সর্বশেষ:
রূপগঞ্জে শীত বস্ত্র বিতরণ কর্মসূচি বহুল প্রতীক্ষিত উপজেলা কমপ্লেক্স শহীদ মিনারের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন একতা ব্লাড ও সমাজকল্যাণ সংস্থার উদ্যোগে বিনামূল্যে রক্তের গ্রুপ পরিক্ষা নির্ণয় কর্মসূচি রক্ত বালক রায়হান মিয়ার গল্প শরীফ শরীফার গল্পের সমর্থকদের বলছি- মাহবুব আলম প্রিয় রূপগঞ্জে খৃষ্টান থেকে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলো সোহেল টুডু নামের এক যুবক একতা ব্লাড ও সমাজকল্যাণ সংস্থার উদ্যোগে মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ অব্যাহত নতুন বিজ্ঞাপনে ইলিয়াস কাঞ্চন-হাসান জাহাঙ্গীর রূপগঞ্জে অটোরিকশার চাপায় স্কুল ছাত্রের মৃত্যু সামাজিক সংগঠন রূপগঞ্জ সোস্যাল ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে এতিম শিক্ষার্থীদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ
February 26, 2024, 9:57 pm
শিরোনাম:
পরীক্ষা মূলক সম্প্রচার চলছে

Categories

রূপগঞ্জে গুড়িয়ে দেয়া হলো বেলদী বাজারসহ অর্ধশতাধিক অবৈধ স্থাপনা

রূপগঞ্জ বার্তা ডেস্ক 1058 বার পঠিত
Update : Thursday, September 16, 2021

রূপগঞ্জ বার্তা ডেস্কঃ
নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদী দখল করে গড়ে ওঠা রূপগঞ্জ উপজেলার বেলদী বাজারের ২টি ৩তলা ভবন, ৭টি দোতলা ভবন, ৬টি একতলা ভবনসহ অর্ধশতাধিক অবৈধ স্থাপনা গুড়িয়ে দিয়েছে বিআইডব্লিউটিএ ঘোড়াশাল নদী বন্দর কর্তৃপক্ষ।

এসময় নদী দখল করে নির্মিত ২ টি ৩ তলা ভবন, ৭টি পাকা দোতলা ভবন, ৬ টি একতলা ভবন, ৭টি ইটভাটার নদী দখলে করে গড়ে তোলা স্থাপনা, একটি ব্যাটারী কারখানার দেয়ালসহ অর্ধশতাধিক অবৈধ স্থাপনা গুড়িয়ে দেয়া হয়।

বৃহস্পতিবার ১৬ সেপ্টেম্বর সকাল ১০ টা থেকে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত একটি ভেকু (এক্সাভেটর) দিয়ে এই উচ্ছেদ অভিযান পরিচালিত হয়। বিআইডব্লিউটিএ’র নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট শোভন রাংসার নেতৃত্বে উচ্ছেদ অভিযানটি পরিচালিত হয়। সার্বিক তত্বাবধায়নে ছিলেন বিআইডব্লিউটিএ ঘোড়াশাল নদী বন্দরের ভারপ্রাপ্ত উপপরিচালক নূর হোসেন স্বপন।

এসময় বিআইডব্লিউটিএর মেডিকেল অফিসার ডা: ফারুক, সার্ভেয়ার মো: ইয়াসিনসহ অন্যান্য কর্মকর্তা কর্মচারীসহ বিপুল সংখ্যক পুলিশ, উচ্ছেদকর্মী উপস্থিত ছিল।
এদিকে বেলদী বাজার এলাকায় নদী দখল করে পাকা ভবনগুলো গুড়িয়ে দেয়ার সময় নদীর তীরে ভীড় করে অসংখ্য দর্শনার্থী।

বিআইডব্লিউটিএ’র নদী দখলমুক্ত অভিযানকে স্বাগত জানিয়েছেন এলাকাবাসী। স্থানীয়রা বলছেন নদী দখলকারীদের কারণে নারায়ণগঞ্জের প্রাণ শীতলক্ষ্যা ক্রমশ সংকীর্ণ হয়ে পড়ছে। যে কারণে নদী দখলমুক্ত অভিযান আরো বেগবান করা প্রয়োজন বলে তারা মনে করেন।

বিআইডব্লিউটিএ ঘোড়াশাল নদী বন্দরের ভারপ্রাপ্ত উপপরিচালক নূর হোসেন স্বপন জানান, বৃহস্পতিবার উচ্ছেদ অভিযানের দ্বিতীয় দিনে ২ টি ৩ তলা ভবন, ৭টি পাকা দোতলা ভবন, ৬ টি একতলা ভবন, ৭টি ইটভাটার নদী দখলে করে গড়ে তোলা স্থাপনা, একটি ব্যাটারী কারখানার দেয়ালসহ অর্ধশতাধিক অবৈধ স্থাপনা গুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। আমরা ইতিপূর্বে অবৈধ দখলদারদের নোটিশ দিলেও তারা কোন ধরনের কর্ণপাত করেনি।

যে কারনে গত ২ দিনে আমরা প্রায় একশত অবৈধ স্থাপনা গুড়িয়ে দিয়েছি। নদী দখলদাররা যত প্রভাবশালী হোক তাদের ছাড় নেই। আমাদের উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

Our Facebook Page


এই বিভাগের আরও খবর